বগুড়া ০১:৪৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম ::
Logo কাহালুর বীরকেদার ইউনিয়নে বিএনপির গণ-সংযোগ ও লিফলেট বিতরণ অনুষ্ঠিত Logo কাহালুর শেখাহার দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ Logo আদমদিঘীতে সড়ক দুর্ঘটনায় এক শিশু নিহত Logo বগুড়ায় মাসিক কল্যাণ সভায় শ্রেষ্ঠ নির্বাচিত শেরপুর থানা Logo র‍্যাবের যৌথ অভিযানে আটক ৬ Logo বগুড়ায় ছুরিকাঘাতে এক যুবক নিহত Logo কাহালু প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি গঠন সম্পর্কে সিনিয়র সহ আট সাংবাদিকের বিবৃতি প্রদান Logo কাহালুতে বিএনপির গণ-সংযোগ ও লিফলেট বিতরণ Logo যুবলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ চান বিএনপি জামায়াতের নাশকতা মামলার আসামী Logo সান্তাহারে ট্রেনের টিকিট কালোবাজারি চক্রের সদস্য গ্রেফতার
নোটিশ ::
"বগুড়া বুলেটিন ডটকম" এ আপনাকে স্বাগতম। বগুড়ার প্রত্যেক উপজেলায় ১জন করে প্রতিনিধি নিয়োগ দেওয়া হবে। ফাঁকা উপজেলাসমূহ- সদর, শাজাহানপুর, ধনুট, শেরপুর, নন্দীগ্রাম

আমিরাতে সোফা কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ৩ বাংলাদেশির মৃত্যু

বগুড়া বুলেটিন ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০১:১৩:৪৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ মে ২০২৩
  • / 176
আজকের জার্নাল অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে একটি সোফা কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে তিন বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (৩০ মে) সকালে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিটে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতদের সবার বাড়ি নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায়। তারা হলেন, সেনবাগের ডমুরুয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের তারাবাড়িয়া গ্রামের আবদুল কাদেরের ছেলে মো. ইউসুফ মিয়া (৪৫), একই গ্রামের মীর হোসেনের ছেলে তারেক হোসেন বাদল (৪২) ও আবদুল ওহাবের ছেলে মো. রাসেল (২৬)।

ডমুরুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শওকত হোসেন কানন পরিবারের বরাত দিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, একসঙ্গে তিন প্রবাসীর মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পরিবারের দাবি মরদেহগুলো যেন দেশে আনার ব্যবস্থা করা হয়।

মঙ্গলবার (৩০ মে) রাতে সরেজমিন নিহতদের বাড়িতে শোকের মাতম দেখা যায়। পরিবারের লোকজন ও আত্মীয়-স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েছেন। একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে অসহায় হয়ে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছে পরিবারের সদস্যরা। গ্রামজুড়ে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। একই গ্রামের তিন ব্যক্তির অকাল মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না গ্রামবাসী।

নিহত রাসেলের মা শরীফা বেগম বুকচাপড়ে কান্না করে বলেন, দুই ভাই ও দুই বোনের মধ্যে রাসেল ছিল দ্বিতীয়। ঢাকার একটি ব্যাগ কারখানায় চাকরি করে সংসার চালাতো সে। তিন বছর আগে সে বিয়ে করেছে। দেড় বছর বয়সী একটি কন্যাসন্তান রয়েছে তার। জীবিকার তাগিদে ও পরিবারের খরচ চালাতে প্রায় ৬-৭ লাখ ধারদেনা করে ২০২২ সালে আবুধাবিতে যায় রাসেল।

রাসেলের স্বজনরা জানান, একই এলাকার আরও কয়েকজন থাকায় ওই সোফা কারখানায় চাকরি করতো রাসেল। প্রতিদিনের মতো সোমবার রাত ১টার দিকে পরিবারের লোকজনের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলে। পরদিন রাতে ডিউটি আছে তাই দ্রুত ঘুমিয়ে পড়বে বলে মোবাইলে বিদায় নেয় রাসেল। মঙ্গলবার দুপুরে আবুধাবিতে থাকা এলাকার লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারেন রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় আগুনে পুড়ে রাসেল মারা গেছে। পরিবারের অভাব-অনটনের মধ্যের একটু ভালো থাকার আশায় ধারদেনা করে রাসেলকে পাঠানো হয়েছিল সেখানে। এখন সবই শেষ।

নিহত ইউছুফ মিয়ার বড় ছেলে মহিনুল ইসলাম মিলন বলেন, প্রায় ২৫ বছর আগে জীবিকার সন্ধানে আবুধাবি যায় তার বাবা ইউছুফ মিয়া। এরপর থেকে সোফা কারখানাটিতে চাকরি করতেন তিনি। সবশেষ গত পাঁচ বছর আগে দেশে এসেছিলেন। গত এক বছর আগে মালিকের কাছ থেকে কারখানাটি ক্রয় করে নিজের দেশের শ্রমিক দিয়ে সেটি পরিচালনা করে আসছিলেন তিনি। দীর্ঘধিন কষ্ট করে একার আয়ে সংসার চালিয়ে আসছিলেন তিনি। ভালো সময় আসার সঙ্গে সঙ্গে এমন দুর্ঘটনা আমাদের পরিবারকে নিঃস্ব করে দিয়েছে।

এদিকে, পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ছেলে তারেক হোসেন বাদলকে হারিয়ে অনেকটা অসহায় হয়ে পড়েছেন বাবা মীর হোসেন। চার ছেলের মধ্যে দুই জনই শারীরিক প্রতিবন্ধী। এরই মধ্যে চলে গেলেন বাদল।

মীর হোসেন বলেন, কয়েক বছর ওমান থাকার পর ভিসায় সমস্যা থাকায় গত বছর দেশে এসে ৮ মাস আগে আবুধাবি যায় বাদল। একাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত একজনসহ তার তিন ছেলে রয়েছে। দুই ছেলে প্রতিবন্ধী হওয়ায় সংসার চালানোর দায়িত্ব তার কাঁধে ছিলো। বাদল চলে যাওয়ায় আমাদের পরিবারের সব শেষ হয়ে গেছে।

নিহতের পরিবার ও স্বজনদের দাবি যেহেতু আগুনে পুড়ে তাদের মৃত্যু হয়েছে। শরীরের যেটুকু অংশ রয়েছে সেটুকু যেনো বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতায় দ্রুত দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

আমিরাতে সোফা কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ৩ বাংলাদেশির মৃত্যু

আপডেট সময় : ০১:১৩:৪৮ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩১ মে ২০২৩

সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে একটি সোফা কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে তিন বাংলাদেশির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (৩০ মে) সকালে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিটে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতদের সবার বাড়ি নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায়। তারা হলেন, সেনবাগের ডমুরুয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের তারাবাড়িয়া গ্রামের আবদুল কাদেরের ছেলে মো. ইউসুফ মিয়া (৪৫), একই গ্রামের মীর হোসেনের ছেলে তারেক হোসেন বাদল (৪২) ও আবদুল ওহাবের ছেলে মো. রাসেল (২৬)।

ডমুরুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শওকত হোসেন কানন পরিবারের বরাত দিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, একসঙ্গে তিন প্রবাসীর মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পরিবারের দাবি মরদেহগুলো যেন দেশে আনার ব্যবস্থা করা হয়।

মঙ্গলবার (৩০ মে) রাতে সরেজমিন নিহতদের বাড়িতে শোকের মাতম দেখা যায়। পরিবারের লোকজন ও আত্মীয়-স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েছেন। একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে অসহায় হয়ে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছে পরিবারের সদস্যরা। গ্রামজুড়ে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। একই গ্রামের তিন ব্যক্তির অকাল মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না গ্রামবাসী।

নিহত রাসেলের মা শরীফা বেগম বুকচাপড়ে কান্না করে বলেন, দুই ভাই ও দুই বোনের মধ্যে রাসেল ছিল দ্বিতীয়। ঢাকার একটি ব্যাগ কারখানায় চাকরি করে সংসার চালাতো সে। তিন বছর আগে সে বিয়ে করেছে। দেড় বছর বয়সী একটি কন্যাসন্তান রয়েছে তার। জীবিকার তাগিদে ও পরিবারের খরচ চালাতে প্রায় ৬-৭ লাখ ধারদেনা করে ২০২২ সালে আবুধাবিতে যায় রাসেল।

রাসেলের স্বজনরা জানান, একই এলাকার আরও কয়েকজন থাকায় ওই সোফা কারখানায় চাকরি করতো রাসেল। প্রতিদিনের মতো সোমবার রাত ১টার দিকে পরিবারের লোকজনের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলে। পরদিন রাতে ডিউটি আছে তাই দ্রুত ঘুমিয়ে পড়বে বলে মোবাইলে বিদায় নেয় রাসেল। মঙ্গলবার দুপুরে আবুধাবিতে থাকা এলাকার লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারেন রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় আগুনে পুড়ে রাসেল মারা গেছে। পরিবারের অভাব-অনটনের মধ্যের একটু ভালো থাকার আশায় ধারদেনা করে রাসেলকে পাঠানো হয়েছিল সেখানে। এখন সবই শেষ।

নিহত ইউছুফ মিয়ার বড় ছেলে মহিনুল ইসলাম মিলন বলেন, প্রায় ২৫ বছর আগে জীবিকার সন্ধানে আবুধাবি যায় তার বাবা ইউছুফ মিয়া। এরপর থেকে সোফা কারখানাটিতে চাকরি করতেন তিনি। সবশেষ গত পাঁচ বছর আগে দেশে এসেছিলেন। গত এক বছর আগে মালিকের কাছ থেকে কারখানাটি ক্রয় করে নিজের দেশের শ্রমিক দিয়ে সেটি পরিচালনা করে আসছিলেন তিনি। দীর্ঘধিন কষ্ট করে একার আয়ে সংসার চালিয়ে আসছিলেন তিনি। ভালো সময় আসার সঙ্গে সঙ্গে এমন দুর্ঘটনা আমাদের পরিবারকে নিঃস্ব করে দিয়েছে।

এদিকে, পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ছেলে তারেক হোসেন বাদলকে হারিয়ে অনেকটা অসহায় হয়ে পড়েছেন বাবা মীর হোসেন। চার ছেলের মধ্যে দুই জনই শারীরিক প্রতিবন্ধী। এরই মধ্যে চলে গেলেন বাদল।

মীর হোসেন বলেন, কয়েক বছর ওমান থাকার পর ভিসায় সমস্যা থাকায় গত বছর দেশে এসে ৮ মাস আগে আবুধাবি যায় বাদল। একাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত একজনসহ তার তিন ছেলে রয়েছে। দুই ছেলে প্রতিবন্ধী হওয়ায় সংসার চালানোর দায়িত্ব তার কাঁধে ছিলো। বাদল চলে যাওয়ায় আমাদের পরিবারের সব শেষ হয়ে গেছে।

নিহতের পরিবার ও স্বজনদের দাবি যেহেতু আগুনে পুড়ে তাদের মৃত্যু হয়েছে। শরীরের যেটুকু অংশ রয়েছে সেটুকু যেনো বাংলাদেশ সরকারের সহযোগিতায় দ্রুত দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়।